Chinta Prakashoni

Showing all 30 results

  • Sale! Placeholder

    Dalanbari O Nirhara | দালানবাড়ি ও নীড়হারা

    Rated 0 out of 5
    170

    Asim Kundu | অসীম কুন্ডু

    দালানবাড়ি
    জীবনের ছায়া স্বপ্ন? না কি স্বপ্নের ছায়া জীবন? যেটাই হোক না কেন, আসলে জীবন ও স্বপ্ন সব সময় পরস্পরকে ছুঁয়ে থাকে, যেমন ভাবে সদ্যোজাত শিশু তার মায়ের বুক ছুঁয়ে থাকে। তা একটা দালানবাড়ির স্বপ্নও ছুঁয়ে ছিল অদ্ভু ও শীলার জীবনকে। ওরা কি সক্ষম হবে সেই স্বপ্নের পাখিটাকে বাস্তবতার নীড়ে বসিয়ে জীবনের দু’হাত দিয়ে তাকে ছেনে ছেনে সুখ ও সৌভাগ্যের অস্তিত্বকে চেটেপুটে উপভোগ করতে? না কি এক সময় ইট-বালি-সিমেন্টের দালানবাড়ি গৌণ হয়ে গিয়ে তাদের কাছে মিলন ভালবাসার দালানবাড়িই মুখ্য হয়ে উঠবে?
    নীড়হারা
    মীনা বিশ্বাস করে রক্তের দোষ বলে কিছু হয় না। মেয়েরা কলগার্ল হয় পরিস্থিতির চাপে বা অর্থ ও শরীরের লোভে। সে কোনওদিন অর্থের লোভ করবে না। সে চিরকাল সতী-সাধ্বী হয়ে থাকতে চায়। কিন্তু মা তাকে ওই পথে নিয়ে যেতে চায়। তাই সে মায়ের কাছ থেকে পালিয়ে যায়। কোথায় খুঁজে পাবে সে তার নীড়? ভালবাসার মানুষের কাছে? না কি বাবার কাছে? না কি শেষ পর্যন্ত নীড়হারা হয়ে গিয়ে তার আশ্রয় হবে কোনও সরকারি হোমে?
  • Sale!

    Shironame Chand O Ganguly Mam | শিরোনামে চাঁদ ও গাঙ্গুলী ম্যাম

    Rated 0 out of 5
    170

    Kajal Sen | কাজল সেন

    ‘শিরোনামে চাঁদ’ এবং ‘গাঙ্গুলি ম্যাম’ এই দুটি ছোট উপন্যাসকে দুই মলাটে সংকলিত করে প্রকাশ করা হল ‘শিরোনামে চাঁদ ও গাঙ্গুলি ম্যাম’ বইটি। বিগত শতাব্দীর সত্তর দশকের কবি, গল্পকার ও লিটল ম্যাগাজিন সম্পাদক কাজল সেনের এটাই প্রথম উপন্যাসের বই। দুটি উপন্যাসের কুশী লবের শ্রেণি অবস্থান মধ্যবিত্ত স্তরে। তাদের ব্যক্তিগত জীবন ও যাপনের বিভিন্ন আশা-আকাঙ্ক্ষা, মুগ্ধতা-হতাশা, স্বপ্ন-ফ্যান্টাসি চিত্রিত হয়েছে দুটি ভিন্ন প্রেক্ষাপটে। সমষ্টিগত জীবনের অংশীদার হয়েও প্রতিটি মানুষের জীবন যে স্বতন্ত্র এবং বিচিত্র, তারই বহু বর্ণময় আলেখ্য ‘শিরোনামে চাঁদ ও গাঙ্গুলি ম্যাম’।

  • Sale!

    অন্তর্বর্তী নদী – এনগুগি ওয়া থিয়োঙ্গো | Antorborti Nodi – Ngũgĩ wa Thiong’o

    Rated 0 out of 5
    255

    Samawita Chakraborty | শময়িতা চক্রবর্তী

    হোনিয়া নদীর দু ধারে সিংহের মতো ঘুমিয়ে থাকা কেনিয়ার দুই প্রত্যন্ত গ্রাম কামেনো আর মাকুয়ু। সবে শ্বেতাঙ্গ বসতকাররা মিশনারীর ছদ্মবেশে সেখানে পা রাখতে চলেছে, ধীরে ধীরে বদলে যাচ্ছে এখানকার উপজাতিদের জীবন। মহান স্রষ্টা মুগো ও চেগে ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন প্রজাপতির মতো রঙিন পোশাক পরা মানুষগুলো থেকে সাবধান। ওদের শিক্ষা লাভ করেই ওদের জব্দ করতে হবে। পাহাড় থেকে উদয় হবে এক মসিহার। ওয়াইয়াকি কি পারবে কালো মানুষদের মসিহা হয়ে উঠতে। নাকি ন্যয়মবুরার সঙ্গে সে পালিয়ে যাবে নাইরোবি শহরে?

  • Sale!

    Notun Bhasar Akkhor | নতুন ভাষার অক্ষর

    Rated 0 out of 5
    425

    Nilanjana Hazra | নীলাঞ্জন হাজরা

    এই সংকলনে রয়েছে কয়েজ আহমেদ ফয়েজ উত্তর নয় পাকিস্তানি কবির উর্দু কবিতার তরজমা
    অফজাল আহমদ সৈয়দ, সরোয়ত হুসেন, সয়ীদউদ্দিন, জিশান সাহিল, আজরা আব্বাস, তনবির আঞ্জুম, সারা শগুফতা, কিশ্বর নাহিদ ও ফহমিদা রিয়াজ।
    কবিতাগুলি গড়ে কবি উৎপলকুমার বসুর লিখিত প্রতিক্রিয়া—’এই কবিতাগুলি পড়তে পড়তে আমি বারবার আত্মবিস্মৃত হয়েছি। ভুলে গেছি আমি একজন কলকাতাবাসী, বাঙালি, ভারতীয় শতাব্দী শুরুর আলোআঁধারিতে বসে দূর থেকে ভেসে আসা গান শুনছি যেন…… কবিদের কাছে জানতে চাইছি আবার দেখা হবে তো, যখন আমরা সময়কে তুচ্ছ মানব, ভূগোলকে করব, রাজনীতির কান মলে দেব? আমাদের সমানে থাকবে শুধু কবিতা। কবিতাই আমাদের ইন্দ্রিয়। কবিতাই আমাদের অস্তিত্ব।’
    নীলাঞ্জন হাজরার জন্ম ১৯৬৭ সালে। নিজভূম বাঁকুড়া জেলার বিষ্ণুপুর। পেশায় বছর চোদ্দ কলকাতার মার্কিন কনসুলেটের বৈদ্যুতিন মাধ্যম বিভাগের প্রধান। পরে সাংবাদিকতা। ‘অনুবাদের মাধ্যমে বাংলা সাহিত্যে অবদানের জন্য পেয়েছেন পশ্চিমবঙ্গ বাংলা আকাদেমি’র লীলা রায় পুরস্কার। প্রকাশিত বই— ‘চকমকি: মার্কিন পশ্চিমের অগ্নিগর্ভ দিনকালের পাঁচটি স্মৃতিকথা’ (তরজমা / ধানসিড়ি), ‘কাবাব কিস্সা’ (গদ্য / ধানসিড়ি), ‘ঝাঁপ’ (কবিতা / ধানসিড়ি), ‘অনাথ দূরত্বেরা’ (কবিতা ধানসিড়ি), ‘কালি বিল্লির ঠেক: নাগিব মহফুজের গল্পসংকলন’ (তরজমা / ধানসিড়ি), ‘গানের প্রতিবাদ, প্রতিবাদের গান: কবীর সুমনের সটীক সাক্ষাৎকার’ (কারিগর)।

  • Sale!

    MUKHOSHER ARALE O SROTER MUKH A Collection of two Bengali Novels by ASIM KUNDU

    Rated 0 out of 5
    170
    মুখোশের আড়ালে
    তোমার নাম পুষ্প। পুষ্পের মতোই তোমার মনটা পবিত্র। ছোটবেলায় তুমি অনেক মুখোশ পরেছ-বাঘের মুখোশ, সিংহের মুখোশ, ভাল্লুকের মুখোশ। তখন তুমি জানতে এই সব পশুরা গহন জঙ্গলে থাকে। কিন্তু বড় হয়ে তুমি দেখতে পাবে তোমার চারপাশেই এরকম অনেক পশু আছে, কিন্তু তারা মানুষের মুখোশ পরে থাকে বলে তাদের চেনা যায় না। জীবনের পথে চলতে চলতে এরকম অনেক মানুষের মুখোশ পরা পশুর সাথে তোমার সাক্ষাৎ হতে থাকবে। কিন্তু তাই বলে তো জীবন থেমে থাকবে না- ভালবাসা থেমে থাকবে না। তারা আপন বেগে আপন পথে চলতে থাকবে। কিন্তু তোমার ও তোমার একমাত্র সন্তানের জীবনে এমন কী ঘটল যাতে জীবনের অপরাহ্নে পৌঁছে তোমার মনে হল সন্তানের সাথে চিরকালের মতো সম্পর্ক ছিন্ন করে দেওয়া ছাড়া তোমার জীবনের অঙ্ক মিলানোর আর কোনও উপায় নেই?
    স্রোতের মুখ
    আশুতোষ তার দুই সন্তানের ভালবাসার স্রোতের মুখকে পরিবর্তন করতে চেয়েছিলেন। তাতে কি তিনি সফল হবেন? তার দুই সন্তানের জীবনে এমন কী ঘটল যাতে পরিশেষে তিনি এই সিদ্ধান্তে উপনীত হলেন যে, জীবন যেমন নদীর মতো— জোর করে তার মুখ যেমন পরিবর্তন করা যায় না, ভালবাসাও তেমন নদীর স্রোতের মতো—সেই স্রোতের মুখও জোর করে পরিবর্তন করা যায় না।
  • Sale!

    ARSENIC A Bengali Novel by ANUPAM MUKHOPADHYAY

    Rated 0 out of 5
    170

    ‘আর্সেনিক’ বাংলা উপন্যাসে এক আশ্চর্য সংযোজন। এই উপন্যাসের আবহ, এবং অদ্ভুত কিছু চরিত্র পাঠককে মন্ত্রমুগ্ধ করে রাখবে। প্রেম, ঘৃণা, প্রতারণা, প্রতিশোধ এই শব্দগুলোকে নতুনতম মাত্রায় পরীক্ষা করেছেন লেখক। এই গথিক উপন্যাস মহাকাব্যিক ব্যাপ্তির দিকে যেতে চেয়েছে। লালমাটি আর জঙ্গলে ঘেরা পরিবেশে এই উচ্চাকাঙ্ক্ষী এবং ক্লাসিক পর্যায়ের কাহিনি মানুষের মনের গোপনতম হিংসা আর অপ্রতিরোধ্য যৌনতা নিয়ে অবিরত খেলা করেছে। মানুষ কী চায়, সেই স্বীকারোক্তি সে যখন নিজের কাছে করে, তখন হয়তো একটা দুর্ঘটনা ঘটে, এবং আশপাশের মানুষদের সে তখন ধ্বংস করে দিতে পিছপা হয়। না। এই উপন্যাসের প্রতিটি পরতে এক অনির্ণেয় অলৌকিকতার দেখা পাবেন পাঠক। শেষ পৃষ্ঠায় পৌঁছে হয়তো মনে হবে জীবনের এক অনাস্বাদিতপূর্ব অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে তিনি গেলেন।

  • Sale!

    Sahabas O Parabas A Collection of Two Novels by KAJAL SEN

    Rated 0 out of 5
    170

    কাজল সেনের দুটি উপন্যাস ‘সহবাস’ ও ‘পরবাস’ একত্রে দু’মলাটে সংকলিত হয়ে প্রকাশিত হলো ‘সহবাস ও পরবাস’ শিরোনামে। বস্তুতপক্ষে এই দুটি শব্দের ভাবনার মধ্যে পরষ্পর বিরোধী অর্থভাবনা বা ধারণা থাকলেও, সূক্ষ্ম ও নিবিড় চেতনায় শব্দ দুটিকে পরষ্পরের পরিপূরক বলে মনে হয়। সৃষ্টির শুরু থেকে প্রাণের বিকাশ এবং প্রাণীদের বংশবিস্তার হয়ে আসছে সাধারণ অর্থে সহবাস বা নারী-পুরুষের যৌনমিলনের প্রক্রিয়ায় এবং বিশদ অর্থে সহবাস বা সমবেতভাবে বসবাস করার প্রয়োজনীয়তায়। অর্থাৎ সহবাস ভাবনাটা একইসঙ্গে শারীরিক এবং মানসিক। অন্যদিকে পরবাস ভাবনাটা পুরোপুরি মানসিক। এমনও বলা যেতে পারে, কোনো পুরুষ ও নারী একই ছাদের তলায় বসবাস করে সহবাস বা যৌনমিলন করলেও তারা মানসিক ভাবে হয়তো অনেক দূরে অবস্থান করে, অর্থাৎ তারা পরবাসী। আবার যৌনসম্পর্ক ব্যতিরেকেও কোনো পুরুষ ও নারী বহু যোজন দূরত্বে বসবাস করেও মানসিকভাবে একই বিন্দুতে অবস্থান করে, আর তাই তারা পরবাস নয়, বরং সহবাস করে। ‘সহবাস ও পরবাস’ উপন্যাস দুটিতে এই ভাবনারই প্রতিফলন ঘটেছে।

  • Sale!

    TRASS KAHINI A Bengali Novel by TIRTHANKAR NANDY

    Rated 0 out of 5
    170

    হঠাৎ এক অতিমারির দৌলতে আমরা ছিন্নভিন্ন। দিশেহারা। এই সংবাদ আমাদের প্রত্যেকেরই জানা। এই জানা জিনিসকে সাহিত্যের পটে নতুন মাত্রা দেওয়ার চেষ্টা হয়।

  • Sale!

    JOLE LEKHA A Bengali Novel by BISWANATH PAUL

    Rated 0 out of 5
    170

    এক কথায় এই উপন্যাসে তিলোত্তমানগরের জলকাহিনি বিবৃত হয়েছে। বাড়িতে পুরসভার পানীয় জলের সংযোগ নিতে গিয়ে একের পর এক বিচিত্র অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হতে হয় বিপ্লবকে। প্রবল দ্বিমুখী বাধার জট আসে তার সামনে। মনে হয় সে যেন জলের এক জটিল আবর্তে ঘুরপাক খাচ্ছে। বাঁকা পথে শুধু টাকাই যেখানে যথেষ্ট, সোজা পথে থাকে একের পর এক শর্ত। সেইসব শর্তপালনেও তার জ্যাঠতুতো ভাইরা বাধার প্রাচীররূপে দেখা দেয়। পাশাপাশি তিলোত্তমানগর পুরসভার আচরণও তার হৃদয়হীন মনে হয়। সমস্ত বাধা টপকে বিপ্লব কি পারবে বাড়িতে জল আনতে? জলের অধিকার থেকে বঞ্চিত করা কি জীবনের অধিকার থেকে বঞ্চিত করা নয়? শুধু কি জল নিয়েই এই কাহিনি? নাকি জলের আড়ালে রয়েছে সম্পত্তি নিয়ে এক চিরকালীন ভ্রাতৃবিরোধ ও ঈর্ষা? এই সব প্রশ্নের উত্তর খোঁজার চেষ্টা আছে এই উপন্যাসে।

  • Sale!

    Amochu | আমোচু- কৃষ্ণপ্রিয় ভট্টাচার্য

    Rated 0 out of 5
    170
    আমোচু একটি নদীর নাম। সে তিব্বত-হিমালয় পাহাড়ের চমুলহরিজাত। চারটি দেশ পেরিয়ে রোজ সে টন-টন পলিমাটি আর কিউসেক-কিউসেক জল সাগরের জন্য বয়ে নিয়ে যায়। তার উপকূলে যে রূপান্তরকামী সেপিয়ান সভ্যতা, সেই সভ্যতায় একটু-আধটু খবরদারি করাও আমোচুর নেশা।
    লাম্পাতি একটি অতি প্রাচীন বটতূল্য বৃক্ষ। আমোচুর ডান উপকূলে তাদিংদঙে যখন থেকে আমোচুপারা আছে তখন থেকেই এক আদিবৃক্ষের মতো সেও আছে। লাম্পাতিকে সাধারণত লাম্পাতিবুড়ো বলা হয়। আমোচুর সঙ্গে লাম্পাতি বুড়োর এক রহস্যময় সখ্য। আমোচু লাম্পাতির এই অলৌকিক সম্পর্ক তাদিংদঙের এবং পাশের উপত্যকায় সেপিয়ান সভ্যতাকে কার্যত নিয়ন্ত্রণ করে।
    হিপ্‌শা আর পদুয়া, দুটি ছোটো পাহাড়। মাঝে মাঝে এই দুই পাহাড়ের অনন্তকোন্দলতাদিংদও কেন ভিন গ্রহের প্রাণীরাও দেখে। এই পাহাড়কোন্দল ও আমোচু-উপকূলের সেপিয়ানদের জীবনে অন্য প্রাণবহ্নি বয়ে আনে।
    এর মধ্যে সাইন্জা ও ঈশ্পা আর এন্ডিবুড়ৈ নামের কিছু ক্ষমতাবান উপজাতীয় দেবদেবীরও অনেক লীলাখেলা আছে। সেসব লীলাখেলাকেও ছুঁতে চায় প্রবল উচ্চাকাঙ্ক্ষী আদিনদী, আমোচু। আর সবকিছুকে ছাপিয়ে উপত্যকায় অদ্ভূত অরণ্য-অস্তিত্ব। সেপিয়ানরা জানে না এই অরণ্যভাষ। অথচ আমোচুপা এবং প্রতিবেশী সকল সেপিয়ানদের জীবনে এই অরণ্যের ভূমিকা সাংঘাতিক। সেই অরণ্য তাদের মতো করে আবার বিনির্মাণ করতে চায় উপনিবেশবাদীরা। এ নিয়ে বাঁধে সংঘাত। এসব নিয়ে একটি নদীকথা বা বলা ভালো, কথানদী হল আমোচু। আপাতত বাংলা ভাষায় এই বয়ান কিঞ্চিৎ ভিন্নভাষ দাবি করবে।
    এই আখ্যানিকার সঙ্গে সংযোজিত, বিশিষ্ট সাহিত্যতাত্ত্বিক তপোধীর ভট্টাচার্যের একটি ‘উত্তরকথন’ বয়ানটিকে বাংলা ভাষার পাঠকের কাছে নিয়ে যেতে হয়ত সাহায্য করবে।
  • Sale!

    Pokkhaghat Jekhane Savabik Hoye Utheche | পক্ষাঘাত যেখানে স্বাভাবিক হয়ে উঠেছে- রাহুল দাশগুপ্ত

    Rated 0 out of 5
    170
    রাহুল দাশগুপ্ত একাধারে একজন কবি, ঔপন্যাসিক, প্রাবন্ধিক এবং ছোটগল্পকার। তিনি একজন পাঠক, সম্পাদক এবং প্রকাশকও বটে। সাহিত্যের প্রত্যেক শাখাতেই তাঁর অবাধ চলাফেরা। তাঁর মধ্যে একজন মনস্তত্ববিদের তীক্ষ্ণ এবং সংবেদনশীল দৃষ্টিশক্তি আছে। আছে একজন অভিভাবকের মতো মমতা। একজন প্রেমিকের মরমী মন। আবার একজন গবেষকের তীব্র বিশ্লেষণী শক্তি।
    জন্ম ২৪ এপ্রিল, ১৯৭৭। ভালো নাম, অরিন্দম দাশগুপ্ত। ইউনিভার্সিটি গ্রান্টস কমিশনের স্কলারশিপ নিয়ে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডক্টরেট। পড়িয়েছেন যাদবপুর ও পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য বিশ্ববিদ্যালয়ে। কর্মসূত্রে যুক্ত ছিলেন সাহিত্য অকাদেমির সঙ্গেও। কলকাতা লিটল ম্যাগাজিন ও গবেষণা কেন্দ্রের ‘তরুণ প্রাবন্ধিক সম্মাননা’র প্রথম প্রাপক। এছাড়া পেয়েছেন, কৃত্তিবাস পুরস্কার, কবিপত্র সম্মান প্রমুখ। বাংলা উপন্যাসের প্রথম অভিধান ‘উপন্যাসকোশ’ এর স্রষ্টা। ঢাকা ও মণিপুর সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে আমন্ত্রিত হয়েছেন। পোস্ট ডক্টরেট করছেন গোলপার্ক রামকৃষ্ণ মিশনের ইন্দোলজি বিভাগে।
    ভালোবাসেন বই পড়তে, সিনেমা দেখতে এবং মেয়ে উপাসনার সঙ্গে সময় কাটাতে।
  • Sale!

    Sot, Mamuli je Manush Ti Prithibi Chere Jete Chayni | সৎ, মামুলি যে মানুষটি এই পৃথিবী ছেড়ে যেতে চায়নি- রাহুল দাশগুপ্ত

    Rated 0 out of 5
    170
    রাহুল দাশগুপ্ত একাধারে একজন কবি, ঔপন্যাসিক, প্রাবন্ধিক এবং ছোটগল্পকার। তিনি একজন পাঠক, সম্পাদক এবং প্রকাশকও বটে। সাহিত্যের প্রত্যেক শাখাতেই তাঁর অবাধ চলাফেরা। তাঁর মধ্যে একজন মনস্তত্ববিদের তীক্ষ্ণ এবং সংবেদনশীল দৃষ্টিশক্তি আছে। আছে একজন অভিভাবকের মতো মমতা। একজন প্রেমিকের মরমী মন। আবার একজন গবেষকের তীব্র বিশ্লেষণী শক্তি।
    জন্ম ২৪ এপ্রিল, ১৯৭৭। ভালো নাম, অরিন্দম দাশগুপ্ত। ইউনিভার্সিটি গ্রান্টস কমিশনের স্কলারশিপ নিয়ে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডক্টরেট। পড়িয়েছেন যাদবপুর ও পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য বিশ্ববিদ্যালয়ে। কর্মসূত্রে যুক্ত ছিলেন সাহিত্য অকাদেমির সঙ্গেও। কলকাতা লিটল ম্যাগাজিন ও গবেষণা কেন্দ্রের ‘তরুণ প্রাবন্ধিক সম্মাননা’র প্রথম প্রাপক। এছাড়া পেয়েছেন, কৃত্তিবাস পুরস্কার, কবিপত্র সম্মান প্রমুখ। বাংলা উপন্যাসের প্রথম অভিধান ‘উপন্যাসকোশ’ এর স্রষ্টা। ঢাকা ও মণিপুর সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে আমন্ত্রিত হয়েছেন। পোস্ট ডক্টরেট করছেন গোলপার্ক রামকৃষ্ণ মিশনের ইন্দোলজি বিভাগে।
    ভালোবাসেন বই পড়তে, সিনেমা দেখতে এবং মেয়ে উপাসনার সঙ্গে সময় কাটাতে।
  • Sale!

    PRASANGA: SUBODH SARKAR A Collection of Essays Edited by RAHUL DASGUPTA

    Rated 0 out of 5
    180
    সমকালের উল্লেখযোগ্য লেখকদের নিয়ে আলোচনা হওয়া খুব জরুরি। বিশেষ করে তরুণ লেখক-কবিদের কলমে তাঁদের মূল্যায়ন বিশেষ গুরুত্বের দাবি রাখে। এ ব্যাপারে বাংলা সাহিত্যে যে বিস্তর খামতি রয়ে গেছে, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। বিদেশে একজন জীবিত লেখক বা কবিকে নিয়ে যে পরিমাণ আলোচনা হয়, এদেশে সে তুলনায় প্রায় কিছুই হয় না। এই কারণেই বিশেষ উদ্যোগ নিয়ে চিন্তা লেখক সিরিজ’-এর সূচনা।
    এই সিরিজের প্রথম বই, সমকালের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ কবি, সুবোধ সরকারকে নিয়ে। গত পঞ্চাশ বছর ধরে তাঁর কবিতা বাঙালি পাঠকরে আলোড়িত করে চলেছে। জন্ম, ২৮ অক্টোবর, ১৯৫৮ সালে। কবিতা পড়তে গিয়েছেন আমেরিকা, ফ্রান্স, জার্মানি, গ্রিস, রাশিয়া, তাইওয়ান, ইস্তানবুল স্ত্রী প্রয়াত কবি মল্লিকা সেনগুপ্তের সঙ্গে সম্পাদনা করেছেন ‘ভাষানগর’ পত্রিকা। সম্পাদনা করেছেন, সাহিত্য অকাদেমির ইংরেজি জার্নাল, ইন্ডিয়ান লিটারেচার’। সাহিত্য আকাদেমি পুরস্কার পেয়েছেন ২০১৩ সালে। কবিতার জন্য পেয়েছেন সম্বলপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের গঙ্গাধর মেহের জাতীয় পুরস্কার এবং গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় ও বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাম্মানিক ডি লিট। ২০১৬-তে ফুলব্রাইট ফেলোশিপ নিয়ে আমেরিকার আইওয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়িয়েছেন এবং ৩৩টি দেশের কবি-লেখকদের সঙ্গে আন্তর্জাতিক লেখক শিবিরে অংশ নিয়েছেন। পশ্চিমবঙ্গ কবিতা আকাদেমির তিনিই প্রথম সভাপতি। তরুণ কবিদের দিকে সবসময়ই এই বর্ষীয়ান কবি বাড়িয়ে রেখেছেন তাঁর স্নেহ, মমতার হাত। পুত্র রোরোকে নিয়ে, তরুণ কবিদের সঙ্গে জড়িয়ে তাঁর রোজকার যাপন…
  • Sale!

    Chinta Potrika, 3rd Year | চিন্তা, সাহিত্য ও সংস্কৃতি বিষয়ক পত্রিকা, তৃতীয় বর্ষ, তৃতীয় সংখ্যা

    Rated 0 out of 5
    255
    গদ্য

    বাজাও আমারে বাজাও ॥ চিন্ময় গুহ,   রক্ত ও অগ্নিময় জিভ: মুখের ছবি ॥ অমিতাভ মৈত্র,     জিম মরিসনদের কলকাতা ॥ সুপ্রিয় চৌধুরী,     রুমির কবিতার গহন অরণ্যে ॥ নীলাঞ্জন হাজরা,    ক্রিসমাস ইভের দার্জিলিং ॥ মঞ্জীরা সাহা

    সাক্ষাৎকার 
    সুবোধ সরকার ॥ সায়ন ভট্টাচার্য,  হাসান আজিজুল হক ॥ শ্যামল নাথ,  সেলিনা হোসেন ॥ ইউসুফ মোল্লা,
    জাকির তালুকদার ॥ পাতাউর জামান
    গল্প 
    শম ও তার বিস্ময়কর দ্বীপাত্তর ॥ সায়ম বন্দ্যোপাধ্যায়,   গর্ভধারিণী ॥ কাজল সেন,   কোনো এক বিপদের গভীর বিস্ময় ॥ চিরঞ্জয় চক্রবর্তী,   বইয়ের মানুষ ॥ অয়ন বন্দ্যোপাধ্যায়,  আঁধার ভুবন ॥ গৌতম বিশ্বাস,   কুইলাপাল ॥ উপল মুখোপাধ্যায়,   ২/১, প্যারিপল্লি কমিউন ॥ অনিরুদ্ধ চক্রবর্তী,  দ্য প্যারাডাইস ॥ অনির্বাণ,  জুটি ॥ অনিন্দিতা গোস্বামী
    ধা রা বা হি ক কবিতা গুচ্ছ 
    মৃতফলকে লেখা ॥ হিন্দোল ভট্টাচার্য
    কবিতা
    সুদীপ দাস • সুতপা মুখোপাধ্যায় অনুপম মুখোপাধ্যায়• দীপঙ্কর সেন • মোনালিসা চট্টোপাধ্যায় • গৌতম দে • গৌতম গুহরায় • শুদ্ধেন্দু চক্রবর্তী• ধীমান ব্রহ্মচারী •দীপ্তেলু জানা ● বিজয় দাস • রাজর্ষি দে • শ্যামশ্রী রায় কর্মকার • পলাশ মজুমদার • অনিন্দ্যসুন্দর পাল • বন্ধুসুন্দর পাল • অরিন চক্রবর্তী • সুবীর রায় • সৈকত বালা ● সুকমল • বিশ্বজিৎ মণ্ডল • অরিত্র চ্যাটার্জি • অয়ন মণ্ডল • অঙ্কুশ পাল • নিশীথ ষড়ঙ্গী • সবর্ণা চট্টোপাধ্যায় • স্বপ্ননীল রুদ্র • পার্থসারথী বন্দ্যোপাধ্যায় • বেবী সাউ
    দীর্ঘ কবিতা 
    ফুলুদাসের মৃতদেহ ॥ সমরেশ মুখোপাধ্যায়
    উপন্যাস 
    জাদুকর ॥ সুমিত নাগ,   অরোবরোস ॥ অর্ণব রায়
    ধা রা বা হি ক গদ্য 
    ‘মৃত শহর’-এর পাখি ॥ প্রসেনজিৎ দত্ত
    গল্প (২)
    শূন্যতার একক অভিনয় ॥ শুভজিৎ ভাদুড়ী,  দু’টি গল্প ॥ শুভ চক্রবর্তী,   জাঙ্গুলিক ॥ অভিষেক ভট্টাচার্য,   রোববার । অলোকপর্ণা,   বিড়াল ॥ অয়ন চৌধুরী,   দুটি শাদা ঘুড়ি ও শাহিন ॥ দীপশেখর চক্রবর্তী,    একটি দৈনন্দিন মৃত্যু | বনমালী,    মাল দানব ॥ রাহুল দাশগুপ্ত
  • Sale!

    SRITIR ARALE CHENAMUKH by Collection of Bengali Short Stories by MADHURI DASGUPTA

    Rated 0 out of 5
    170

    ছোটবেলা থেকে স্পর্শকাতর মন। মানুষের দুঃখ-কষ্টে বরাবরই পাশে থাকেন। বিলাসিতার মধ্যে শৈশব কাটলেও গরীব মানুষের দুঃখ-ব্যথা আর মেয়েদের প্রতি অন্যায়-অবিচার-লাঞ্ছনা ব্যথাতুর করে তোলে তাঁর মন। সেজন্যে তাদের কথাই ঘুরে ফিরে আসে মনে—মেয়েদের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলা! এর বিরুদ্ধে সোচ্চার লেখিকার প্রতিবাদ।

  • Sale!

    TARUNIMAR KONO ASUKH NEI A Collection of Fifty Bengali Jhuro Stories by KAJAL SEN

    Rated 0 out of 5
    170

    বাঙলা কথাসাহিত্যের সাম্প্রতিকতম ফর্ম ঝুরোগল্প। হরিচরণ বন্দ্যোপাধ্যায় ‘ঝুরঝুর’ শব্দের মানে লিখেছেন, ‘চূর্ণ দ্রব্যের মৃদুধারায় পতনের ভাব। আগে কথাসাহিত্যের প্রধান যে আঙ্গিক ছিল তা হল অণুগল্প, ছোটোগল্প, উপন্যাস। গল্পের এতো রকমফেরে ঝুরোগল্পের প্রয়োজনীয়তা কোথায়? প্রথমে শব্দ সংখ্যা ৩০০ থাকলেও মাঝে তা বেড়ে ৬০০ হয়। এখন কাজল সেনের মতে, ঝুরোগঞ্জের শব্দ সংখ্যা সর্বাধিক ৪০০। অসম্পূর্ণতা ঝুরোগল্পের মূল বৈশিষ্ট্য। কোনও নিটোল গল্প এখানে থাকবে না। শুরু হবে আচমকা এবং শেষও হঠাৎ। গল্প যদি কোনও নির্দিষ্ট পরিণতিতে পৌঁছে যায়, তবে তা ঝুরোগঞ্জের বৈশিষ্ট্য থেকে বিচ্যুত হবে। ঝুরোগল্প হবে ওপেন এন্ডেড। পরিণতি অর্থাৎ শেষ। যার পরে আর কিছু থাকতে পারে না। ঘটনা, চরিত্র বা সময়ের শেষ। ঝুরোগল্প এই শেষ কথাটা কখনও বলে না।  যা রূপরেখা ও অলঙ্করণ আরও প্রকট হয়I

  • Sale!

    চুনি থঙ্গরাজ আর তরুলতা ২ | Chuni Thangaraj Aar Torulota 2

    Rated 0 out of 5
    170

    Kajol Sen | কাজল সেন

    সাহিত্যের পরিপুষ্টির ইতিহাস সবসময়ই নতুন ফর্ম আবিষ্কারের ইতিহাস। ঝুরোগল্প একবিংশ শতকের বিশ্বায়ন পরবর্তী গোলকায়িত পুঁজির সামনে দাঁড়িয়ে থাকা এক ফ্র্যাগমেন্টেড ফর্ম যা আমাদের চারপাশে সময়-সমাজ-রাজনীতির ভাঙনকে এক ভঙ্গুর ন্যারেটিভ স্ট্রাকচারে ধরবার চেষ্টা করতে পারে। ঝুরোগল্প চিন্তাগদ্যের মুক্ত পরিসরে স্বতন্ত্র হয়ে উঠতে পারে যেখানে চিন্তা সবসময় কাহিনির আকার না নিয়ে নিজের পায়ে দাঁড়াবে। যা রূপরেখা ও অলঙ্করণে আরও প্রকট হয়েছে।

  • Sale!

    Totok Ebong Onnano Golpo | তোটক এবং অন্যান্য গল্প

    Rated 0 out of 5
    308

    Sudhendu Chakraborty | শুদ্ধেন্দু চক্রবর্তী

    এই গল্পগুলির কুশীলবরা কেউ কল্পনা প্রসূত নয়। তারা রক্তমাংসে জীবন্ত। কখনও তারা চলমান লোকাল ট্রেনে ভেন্ডার বগির আগের বগিতে মাইক আর কারা ওকে হাতে রাহুলদেব বর্মনের গান গেয়ে শোনায়। আবার কখনও বা শহরের ব্যস্ত ডাক্তারবাবুর চেম্বারে অপেক্ষমান হয়ে দূর থেকে শুনতে পায় শিশুর মাতৃ আর্তি। কোনও দমবন্ধ শীততাপ আইসিইউতে চলতে থাকে একস্ট্রা টাইম আর পেনাল্টি শ্যুটআউট। আবার কখনও প্রদ্যুম্ন আর অনয়া একই দেহে পাড়ি দেয় মহাকাশে। এখানে সন্ধান মিলবে চিলেকোঠার দিন-ই-ইলাহির। কখনও মধুযাপন হয়ে উঠবে শহরের পাথরবিদ্ধ পথে এক রূপকথার টানা রিক্সা সফর। এটি কোনও গল্পগ্রন্থ নয়। এটি পড়ন্ত সভ্যতার অলিগলি দিয়ে চলতে থাকা একটি বিচিত্র মনস্তাত্ত্বিক সফর। সেখানে সহযাত্রী শুধুই নিঃসঙ্গতা আর একচিলতে আশার আলো…

  • Sale!

    Sevabe Roktopat Hoyni | সেভাবে রক্তপাত হয় নি

    Rated 0 out of 5
    170

    Goutam Dey | গৌতম দে

    পাঠকদের শুধু গল্প বলা নয়, আখ্যান নিয়ে নিরন্তর গবেষণা, গল্পের চেহারায় আমূল ভাঙচুর ঘটিয়ে স্বাদু গদ্য পরিবেশন করাকেই বরাবর প্রাধান্য দিয়ে এসেছেন গৌতম দে। তাঁর ‘সেভাবে রক্তপাত হয়নি’ ছোট গল্প সংকলনের দু মলাটে বন্দি হয়েছে ১৯টি বিস্ফোরক গল্প। ফর্ম নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষার পাশাপাশি গল্পের বিষয়বস্তুর অভিনবত্বের কথা মাথায় রেখেছেন লেখক। পাঠক এই সংকলন পড়তে পড়তে চিনে নিতে পারবেন তাদের আশপাশে ঘটে চলা প্রতিদিনের রঙিন গল্পগুলিকে।

  • Sale!

    Khacha Bisoyok Onnano Golpo | খাঁচা বিষয়ক অন্যান্য গল্প

    Rated 0 out of 5
    170

    Sanjib Niyogi | সঞ্জীব নিয়োগী

    “খাঁচা বিষয়ক অন্যান্য গল্প” বাংলা ছোট গন্ধের জগতে একেবারেই ভিন্নতর এক সংযোজন। প্রচলিত কখন-ভাঙ্গিমার থেকে বহু যোজন দূরে এই লেখকের অবস্থান, পটভূমি আর বিষয়কে যেরকম বিরল এক বিন্দু থেকে দেখা হয় গরগুলিতে, তাতে বারবার অভিনব কোনও পৃথিবীর জানালা খুলে যায়। উঁচু স্বরে কোনও নীতি, আদর্শ বা ঔচিত্যবোধের দায় বহন করেন না। লেখক। জীবনের স্বাস্থ্য তাঁর কলমে প্রাধান্য পায়, যা পু পুঁথি-পড়া বিদ্যার সাথে বা গতানুগতিক ন্যায় নীতির সাথে অনেকাংশেই খাপ খায় না। যেকারণে পাঠক আরও বিপণ্ন বোধ করেন। বলার একেবারেই নিজস্ব এক ধরণ গড়ে তুলেছেন লেখক, আপাত নিরীহ অবলম্বনকে কেন্দ্র করে ও সাধারণভাবে শুরু হয়ে গল্পগুলো আশ্চর্য এক গ্রহন রহস্য ও অভিযাত নির্মাণ করে। মানুষের মুখের স্বাভাবিক ভাষা আর বাংলার বিভিন্ন অঞ্চলের ডায়ালেক্ট নিপুণ দক্ষতায় প্রয়োগ করেন লেখক। লেখক নিজের শুচিবায়ু দিয়ে কখনও তাঁর সৃষ্ট চরিত্রের মনের ভাবনা বা মুখের ভাষা প্রভাবিত করেন না। বিচিত্র জীবনের অকৃত্রিম ছবি ফুটে ওঠে এই বইয়ের গল্প গুলিতে। আর সেইসব বর্ণনা বাংলা গাঙ্কের জগতে অনাস্বাদিতপূর্ণ মাত্রা নিয়ে হাজিত হয়। এই দেখা ও বলার ধরণ অননুকরণীয়।

  • Sale!

    Tokkhok O Onnano Golpo | তক্ষক ও অন্যান্য গল্প

    Rated 0 out of 5
    170

    Hindol Bhattacharya | হিন্দোল ভট্টাচার্য

    প্রচলিত গল্পকারদের চেয়ে ভিন্নধারার গল্প লেখেন এই লেখক। এর আগে লেখকের গল্প-সংকলন ‘সব গল্প কাল্পনিক’ প্রকাশিত হয়েছিল, যা ছিল বারোটি গল্পের সংকলন।

    এই গ্রন্থেও লেখক সময় ও ইতিহাস চেতনার আধারে লক্ষ করেছেন বিভিন্ন মুহূর্তের মধ্যে কীভাবে ফল্গুধারার মতো প্রবাহিত হয় বিপন্ন বিস্ময়ের এক সংকট। কাহিনি এইসব গল্পের মূল পরিত্রাতা না হলেও, প্রতিটি কাহিনি পরাবাস্তবতা এবং অধিবাস্তবতার আলাদা আলাদা মাত্রায় চলে যায়। ফলে প্রতিটি গল্পই এক একটি প্রতীক, আবার সেই সব প্রতীক এক একটি প্রশ্ন। গল্পের মাধ্যমে লেখকের একের পর এক পর্যায়ে যাতায়াত চলতে থাকে। যেন এক অদৃশ্য লাটাই তার অদৃশ্য সুতোয় বেঁধে রাখে বিভিন্ন চরিত্রের অন্তর্গত বিপন্নতায় লেখকের নিজেরই জীবনজিজ্ঞাসা। এগারোটি নির্বাচিত গল্পের সন্নিবেশে এই গ্রন্থ ‘তক্ষক এবং অন্যান্য গল্প’। যন্ত্রণা, দুঃখ, অস্তিত্বের বিপন্নতা এবং দার্শনিক সংকটের এক আধুনিক বুনন। ছোটগল্পের এক বহুমাত্রিক ও বহুস্বরায়িত চিত্রপট।
  • Sale!

    Prachin Bharater Shankhipto Ruprekha O Sahitya | প্রাচীন ভারতের সংক্ষিপ্ত রূপরেখা ও সাহিত্য

    Rated 0 out of 5
    170

    Anindya Sundar Pal | অনিন্দ্য সুন্দর পাল

    সাহিত্য এবং ইতিহাস বিষয়টি পারস্পরিক। সেখানে স্মৃতির নির্মাণ-বিনির্মাণ, সভ্যতার অস্তিত্ব, ক্রমবিবর্তনের প্রতিষ্ঠা এই নিয়ে গড়ে ওঠে চর্চার আগ্রহ। যা একই সুতোয় বাঁধা পড়তে পড়তে পরিণত হয় এক ঘটনামূলক প্রবণতায়। আর এই প্রবণতা ধরেই উঠে আসে আদিম পরম্পরা, সংস্কার রক্ষার তাগিদ, অন্তর্নিহিত শৈল্প-নৈপুণ্যতার প্রতিফলন। যার প্রকাশ ঘটে ভাষায়, প্রকরণে, রুচিতে, চিন্তা এবং চেতনায়। আবার এই চিন্তা চেতনা বিকাশ— সমস্ত কিছুর হাত ধরে মুষ্টিবদ্ধ হয় সাহিত্যের রেখাপাত। এবং এই রেখাপাতের প্রাসঙ্গিকতাই লুকিয়ে থাকে আদিম ভাষা সাহিত্যের প্রবর্তনে।  শুধু শব্দে বাক্যে নয় চিত্র ও অলংকরণেও প্রতিষ্ঠিত হয় ধারাবাহিক ধারণার , তাইই আদি কাল থেকে রেখায় রেখায় মূর্ত হয়ে আসছে প্রাচীন ভারত ও ইতিহাসের ধ্যান ও ধারণার সামগ্রিক প্রকটতার সাক্ষী হিসাবে ম্যুরাল পেন্ট ও কারুকার্যময় নিদর্শনের মতো বহু জিনিস, যা ইতিহাস ও সাহিত্যের অন্যতম অলিন্দ-নিলয় বলা যেতে পারে।‘প্রাচীন ভারতের সংক্ষিপ্ত রূপরেখা ও সাহিত্য’ এই লেখ্যধারা এবং রেখাপাতের একটি সম্পূর্ণ ও সংক্ষিপ্ত অধ্যায়।

  • Sale!

    Du Ek Kona Soisab | দু’এক কণা শৈশব

    Rated 0 out of 5
    170

    Debasish Saha | দেবাশিস সাহা

    ১৯৪৭ সাল, ১৪ আগষ্ট। মধ্যরাত। ভারতবর্ষ দুটুকরো হল। জন্মলাভ করল ভারত ও পাকিস্তান নামে দু’টি স্বাধীন রাষ্ট্র। পাকিস্তানের আবার দু’টি ডানা- পশ্চিম পাকিস্তান ও পূর্ব পাকিস্তান। রাজনৈতিক স্বাধীনতা এল বটে, কিন্তু কোটি কোটি মানুষের ভাগ্যাকাশের তারা গেল মেঘে ঢেকে। উধাও হল বুকের নিভৃতে লালিত নীলকন্ঠ পাখি।

    এই বিভাজনের মধ্যেই সুপ্ত হয়ে রইল। ভবিষ্যতের আর এক অগ্ন্যুদগিরণ একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ। আবার লক্ষ লক্ষ মানুষ হল ভিটেমাটি ছাড়া। উদ্বাস্তু, শরণার্থীর চোখের জলে ভাসল গঙ্গা-পদ্মা।
    এই অশ্রুরেখা ধরেই অস্থির টালমাটাল রাজনৈতিক পরিস্থিতির মধ্যে, মাত্র ন’বছর বয়সে বাবার হাত ধরে, শৈশবের চেনা ছন্দ থেকে উৎপাটিত হয়ে, লেখকের এপার বাংলায় আসা। মর্মস্পর্শী ভাষায় লেখক আমাদের শুনিয়েছেন সেই যন্ত্রণার আখ্যান।
    শৈশব জানল না কী তাঁর অপরাধ। কেন তাকে আচমকাই খেলার মাঠ থেকে নির্বাসিত হতে হল। কেন তার ছোট্ট বুক থেকে উপড়ে নেওয়া হল আম-জাম-বট-অশ্বত্থের ছায়া ঘেরা সবুজ শ্যামলিমা। কেন তাকে ছুঁড়ে ফেলা হল ঝাঁ ঝাঁ রৌদ্রে। অবহেলায়। অনাদরে। কেন? কেন?
    এমনই প্রশ্নে দগ্ধ বিষণ্ণ মন বুঝি, শৈশব স্মৃতিচারণার মধ্য দিয়ে, এইসব প্রশ্নেরই উত্তর খুঁজে চলেছে “দু’এক কণা শৈশব” বইটির সর্বত্র।
  • Sale!

    Itihas O Astitwa | ইতিহাস ও অস্তিত্ব

    Rated 0 out of 5
    170
    Rupayan Ghosh | রূপায়ণ ঘোষ

    এই গ্রন্থের প্রারম্ভেই লেখক উল্লেখ করছেন, “ইতিহাস আদতে সময়ের শৃঙ্খলা ও ছন্দের কারুকার্যময় অসামান্য এক চিত্রকলা।”

    যখন মানুষের স্বাধীন চিন্তার বিকাশ ঘটে, মনোজগতের বিস্ময়কর যেসব সৃষ্টিতে মানুষ, সেই সঙ্গে সমাজ সার্বিক স্বাধীনতার দিকে আরও এক ধাপ অগ্রসর হয়- এ সবই কি তার অন্তর্নিহিত শক্তির উৎস। সেই শক্তির খোঁজ আদতে বিশ্ববোধে উদ্দীপ্ত অনুসন্ধানীসত্তারই গূঢ় অন্বেষণ ?
    বিশেষত তার, যার অভ্যন্তরে মানুষের বিপুল শক্তি সংরক্ষিত রয়েছে, যা অনুকূল ও প্রতিকূল উভয় পরিস্থিতিতেই বিকাশ লাভ করে মহৎ সৃষ্টিতে রূপান্তরিত হতে পারে এবং এ সমস্তই মানব সভ্যতার অস্তিত্বের সারাৎসার।
    মুখ্যত সেই জিজ্ঞাসারই ফসল এই গ্রন্থ। তারুণ্যের উল্লাসকে সরিয়ে রেখে, রূপায়ণ কালের গভীর আগ্নেয়গিরি থেকে উদগিরণ ঘটিয়েছেন জানা-অজানার সংঘাতকালীন সময়ের প্রকৃত প্রস্তাবে যে সময়ের প্রবণতাই হল বহিমুখী, অনিকেতগামী….
  • Sale!

    Bishupagoler Achalayoton | বিশুপাগলের অচলায়তন

    Rated 0 out of 5
    255

    Hindol Bhattacharya | হিন্দোল ভট্টাচার্য

    বিগত কুড়ি বছরে কবি হিন্দোল ভট্টাচার্য নানা বিষয়ে গদ্যও লিখেছেন। সেই সব গদ্যগুলি থেকে শুধু সাহিত্য ও কবিতা সংক্রান্ত কিছু গদ্য নিয়ে এই সংকলন। সেগুলির মধ্যে যেমন রয়েছেন রামপ্রসাদ সেন, তেমনই শঙ্খ ঘোষ, অলোকরঞ্জন দাশগুপ্ত, জয় গোস্বামী থেকে কবিতা সম্পর্কে কবির নিজস্ব ভাবনা। বলা যেতে পারে, এই গদ্যগ্রন্থ কবির নিজস্ব কাব্যচিন্তার এক ফসল। হয়তো আগামী দিনে এই সব চিন্তাও বদলে যেতে পারে। কিন্তু ‘৯৮ থেকে ২০২১ পর্যন্ত গদ্যগুলির একটি অংশ এই গ্রন্থে ধরা রইল। গদ্যসংকলন নয়, বরং বলা ভাল, এই গ্রন্থটি কবির বিশেষ বিশেষ ভাবনার সংকলন।

  • Sale!

    Agadh Jole Khorkuto | অগাধ জলে খড়কুটো

    Rated 0 out of 5
    170

    Sudip Das | সুদীপ দাস

    চেয়ে থাকতে থাকতে চোখের জল শুকিয়ে আসলেও চোখ বন্ধ করা যাবে না। চোখেই বাস করে জিজ্ঞাসা, আর দৃশ্যের ভিতরেই থাকে সাংকেতিক উত্তর। জীবনের অন্তঃস্থল অবধি দেখতে চাওয়ার জন্যই তো একটা নির্জন ঘরে কম্পিউটারের সাদা স্ক্রিনের সামনে বসা আর কীবোর্ডে কয়েকটা আঙুল ছুঁইয়ে রাখা। তারপর অনন্ত প্রতীক্ষা। আগে এই প্রতীক্ষা ছিল ক্লান্তিকর। এখন এই প্রতীক্ষাই আনন্দ। বসে থাকতে থাকতে, তাকিয়ে থাকতে থাকতে একসময় জমে থাকা অনুভূতি মাথা উপচে, শরীর উপচে, হাত উপচে গড়িয়ে নেমে যায় স্ক্রিনে। এভাবেই অগাধ জলে ভেসে থাকে খড়কুটো।

  • Sale!

    Biyas Ebong Sakhanodi | বিয়াস এবং শাখানদী

    Rated 0 out of 5
    130

    Prasenjit Dutta | প্রসেনজিৎ দত্ত

    প্রসেনজিৎ শব্দ দিয়ে ছবি আঁকেন। সেই সব ছবিতে জ্যান্ত হয়ে ওঠে আপাদ মাথা ভুবনডাঙা। কখনও সে বিমূর্ত, কখনও বা সনাতনী। কখনও বুদ্ধিদীপ্ত মাপা ভাবের কারবারি, কখনও বাউল। এভাবেই অনির্দিষ্ট অসংযত আচার আলেখ্য থেকেই বিয়াসের জন্ম।

  • Sale!

    1 Hazar Aynar Agun | ১ হাজার আয়নার আগুন

    Rated 0 out of 5
    170

    Anupam Mukhopadhyay | অনুপম মুখোপাধ্যায়

    একই নদীতে দুবার স্নান করা যায় না। অনুপম মুখোপাধ্যায়ের ক্ষেত্রে এ কথা আশ্চর্যভাবে সত্যি। তাঁর একই কবিতা একের পর এক পাঠে একেকভাবে বদলে যায়। এই কবির প্রতিটি কাব্যগ্রন্থ তাঁর আগের বইটিকে অতিক্রম করে। কখনও তা পাঠকের কাছে আসে, কখনও পাঠককে দূর থেকে হাতছানি দেয়। প্রতিটি কবিতার মধ্যে থাকে অজস্র কবিতার আর অগাধ জীবনের হাতছানি। ১ হাজার আয়নার আগুন’ এই সময়ের এক অনিবার্য কাব্যগ্রন্থ। আমরা নিশ্চিত, এই বইটি বাংলা কবিতার ইতিহাসে স্থান পাবে এবং নিজের জায়গা করে নেবে মরমী পাঠকের হৃদয়ে, রসিকজনের দরবারে।

  • Sale!

    Ahong Bromhasmi | অহং ব্রহ্মাস্মি

    Rated 0 out of 5
    170

    Rupayan Ghosh | রূপায়ণ ঘোষ

    মনে হয় একজন কবিকে আত্মজৈবনিক নির্জনতার ক্লান্তি অতিক্রম করে সময়ের বহুমাত্রিক নীরব অথবা সরব আওয়াজটিকে ধারণ করতে হয়, সেক্ষেত্রে তাঁর মধ্যে বিশ্বব্যাপী বহুরৈখিক চলমানতা অত্যন্ত আবশ্যক হয়ে পড়ে।’—বইটির মুখবন্ধে কবির এই ঘোষণা আদতে ভারতীয় উপনিষদের সেই মহাকাব্যিক তত্ত্বকে সামনে নিয়ে আসে যা চিরন্তন আত্মশক্তির কথা উচ্চারণ করেছে। আত্মন বা নিজস্ব অস্তিত্বকে সর্বপ্রকারে জেনে উঠতে সক্ষম হলেই যাবতীয় মোহের বেড়াজাল ভেঙে ফেলা সম্ভব হয়। মানব চৈতন্য হয়ে ওঠে সর্বকালের, সর্বপ্রেক্ষিতের। আর সেখানেই যখন কাব্যগ্রন্থের পরতে পরতে উচ্চারিত হয় মানবীয় চেতনার খোঁজ- যা অদৃশ্য অথচ দৃশ্যমান, নীরব অথচ সরব, তখনই কবিতার যাত্রাপথে রচিত হয় কবি ও পাঠকের নিরবয়ব স্তোত্রগান— যা অসীম, যা অতলান্ত।

  • Sale!

    5 Angul a Onugoto Megh| ৫ আঙুলে অনুগত মেঘ

    Rated 0 out of 5
    213

    Goutam Guha Roy | গৌতম গুহ রায়

    সমকালের ভারতীয় চিত্রকলার প্রথম সারির শিল্পী, প্রান্তিক জীবন যুদ্ধে প্রতিকূলতাকে জয় করে শিল্পী হয়ে ওঠার এক প্রতীক চরিত্র। ক্যালকাটা পেইন্টাস তৈরি করা থেকে ‘চারুকলা মেলা’র আয়োজক, প্রধান সংগঠক রবীন মণ্ডল। ১৯৩২ এ হাওড়ায় জন্ম, ১৯৪১’এ অসুস্থতার জন্য লেখাপড়ায় ক্ষণিক ছেদ, আবার শুরু করে ১৯৪৫’এ বাণিজ্যে স্নাতক। ১৯৫৬-৫৮, ইন্ডিয়ান কলেজ অব আর্টসের সান্ধ্য বিভাগে ভর্তি হয়ে চিত্রশিক্ষার তালিম নেন। ১৯৬১তে প্রথম একক প্রদর্শনী। আঙ্গিক আর ক্রিয়াকৌশল, দৃষ্টিভঙ্গি আর অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে তাঁর চিত্রের দৃপ্ত যাত্রায় তৈরি হয় তাঁর স্বতন্ত্র পরিচিতি।

error: Content is protected !!